BAF’s first woman pilot flies chopper

Daily Star

Staff Correspondent

Tamanna-E-Lutfy has become the first female pilot in Bangladesh Air Force. She completed her first solo flight by Bell-206 helicopter at the BAF Base Bir Sreshto Matiur Rahman in Jessore yesterday.

“It was part of her flying training,” an Inter Service Public Relations Directorate press release said this yesterday.

The BAF has set a milestone by enrolling female pilots and in the process two female officers — Nayma Haque and  Tamanna — started basic helicopter conversion flying training at the 18 Squadron of BAF Base Bir Sreshto Matiur Rahman for the first time on September 23.

The ISPR branded it as a historical achievement saying that it would play vital role in women empowerment and remain a source of inspiration for Bangladesh Air Force as well as for the whole nation.

Women pilots are usually seen in civil aviation, said the release.

Source  link:

http://www.thedailystar.net/bafs-first-woman-pilot-flies-chopper-51433

 

Comments { 0 }

Wasfia Nazreen

Wasfia Nazreen. An icon of freedom and empowerment to Bangladeshi women. Restless since young age and with adventure in her blood, Wasfia ran to the top of the hill next to her childhood residence before everyone else could. And apparently that ascendance never stopped.

Wasfia started her campaign Bangladesh on seven summits, aimed at climbing the apex points in each continent, to prove women’s strength before the world, thus reaching the highest peak on the earth, Mount Everest. And she dedicated her victory to the women of Bangladesh.

Defying all social bigotry, she maintained her own style while representing the women of a third-world country.

“The world is a small place and we all have social responsibilities. The younger generation should get involved in social works in some forms. We have to remember that all of our actions have effects on others,” she said.

Recently, National Geographic Society selected her as one of the top 10 ‘Adventurers of the Year’ for 2014-15. A pride of Bangladesh, Wasfia represents Asia in the competitive world.

Comments { 0 }

Rabindranath Tagore Selected Poems

Rabindranath Tagore Selected Poems

Gitanjali: Selected Poems

“Song Offerings”
Translations made by the author from the original Bengali.


Mind Without Fear
Where the mind is without fear and the head is held high;
Where knowledge is free;
Where the world has not been broken up
into fragments by narrow domestic walls;
Where words come out from the depth of truth;
Where tireless striving stretches its arms towards perfection;
Where the clear stream of reason
has not lost its way into the dreary desert sand of dead habit;
Where the mind is led forward by thee into ever-widening thought and action—
Into that heaven of freedom, my Father, let my country awake.

Little Flute
Thou hast made me endless, such is thy pleasure. This frail
vessel thou emptiest again and again, and fillest it ever with fresh life.
This little flute of a reed thou hast carried over hills and dales,
and hast breathed through it melodies eternally new.
At the immortal touch of thy hands my little heart loses its limits in
joy and gives birth to utterance ineffable.
Thy infinite gifts come to me only on these very small hands of mine.
Ages pass, and still thou pourest, and still there is room to fill.

Purity
Life of my life, I shall ever try to keep my body pure, knowing
that thy living touch is upon all my limbs.
I shall ever try to keep all untruths out from my thoughts, knowing
that thou art that truth which has kindled the light of reason in my mind.
I shall ever try to drive all evils away from my heart and keep my
love in flower, knowing that thou hast thy seat in the inmost shrine of my heart.
And it shall be my endeavour to reveal thee in my actions, knowing it
is thy power gives me strength to act.

Moment’s Indulgence
I ask for a moment’s indulgence to sit by thy side. The works
that I have in hand I will finish afterwards.
Away from the sight of thy face my heart knows no rest nor respite,
and my work becomes an endless toil in a shoreless sea of toil.
Today the summer has come at my window with its sighs and murmurs; and
the bees are plying their minstrelsy at the court of the flowering grove.
Now it is time to sit quite, face to face with thee, and to sing
dedication of life in this silent and overflowing leisure.

Flower
Pluck this little flower and take it, delay not! I fear lest it
droop and drop into the dust.
I may not find a place in thy garland, but honour it with a touch of
pain from thy hand and pluck it. I fear lest the day end before I am
aware, and the time of offering go by.
Though its colour be not deep and its smell be faint, use this flower
in thy service and pluck it while there is time.

Fool
O Fool, try to carry thyself upon thy own shoulders!
O beggar, to come beg at thy own door!
Leave all thy burdens on his hands who can bear all,
and never look behind in regret.
Thy desire at once puts out the light from the lamp it touches with its breath.
It is unholy—take not thy gifts through its unclean hands.
Accept only what is offered by sacred love.

Comments { 0 }

Contemporary Bengali language

Daily Star

Published: Thursday, February 21, 2013

Contemporary Bengali language

Photo: Archive

The richest and the most outstanding Language Family in the world is the Indo-European (IE). A large number of people of Europe, Middle East and even the Southeast Asia use the different branches of this Language Family. Indo-Aryan (IA) is one of the most remarkable branches of IE. A great number of languages in India, Bangladesh and Nepal have been originated from the IA. Bangla language through its evolution and the shipment has crystallised about one thousand years ago. The origin and development of Bangla language has been studied and discussed by a group of linguists, Sir George Abraham Grierson, Sunitikumar Chaterjee and Muhammad Shahidullah are very noted among them. They all agreed that Bangla language has originated within 9th – 12th century AD. The Bangla language, Assamese, Oria, Maithili and Hindi have originated within this span of time. We have passed thousands of years, since the origin of Bangla language. In the course of time various linguistic changes have been occurred in Bangla.

Bangla is now the State Language of the People’s Republic of Bangladesh and about 300 million people use this language around the world. According to mother tongue ranking its position is fifth in the world.
Every living language of the world has gone through different changes in course of time. The Bangla language is no exception to that. The linguists of today do not agree that these changes occurred in all languages in the same manner. As the change of sounds occurs because of the ease of articulation (e.g. Hashpatal of Bangla language from the English word Hospital, Box>Bakhsho etc), in that way because of social, cultural & political reasons words and the meaning of the words also alters. Even so, the old words are replaced by new words, this also happens in the case of Bangla language. Until the 19th century, the Bangla language was deemed to be an integral part of Sanskrit that had originated from the Aryan language. Bangla as a language has undergone many changes over the past many centuries and evolved as a crossbreed language. For this evolution, we had to wait until the 20th century. Because of the effort and inclination to link Bangla Language with the elements of Aryan origin, the actual identity of the language remained unexpressed and subdued for a long time. Rabindranath Tagore, Suniti Kumar, Shahidullah, Sukumar Sen and many others had intensely analysed the origin of Bangla language, its evolution and identity.
Over last fifty years, although this language has not changed to that extent, structurally no language can be confined to a frontier in the globalised world of the 21st century. The recent phenomenon is that all consumer goods including luxury ones from multinational companies have spread all over the world by dint of technological advancements and new innovations. In this globalised and polarised era, brand items like America’s Gillette Razor and Germany’s Head & Shoulders Shampoo have grabbed the markets of the remotest villages of Bangladesh owing to the concept of free market economy. Like these consumer goods, words and expressions from other languages have entered into other languages facing no resistance. As such these elements lose their regional appeal within a short period of time and then open out itself to the universal use. This has been possible because of burgeoning growth of ICT all over the world. At the same time we found the influence of the Sky culture and electronic media especially private TV Chanel and FM radio, it affects our Bangla language particularly young educated people of metropolitan areas. They use the Bangla language with a particular style which I called Dejuce-Bangla. They mixed-up the English and Hindi world in a Bangla sentence and they changed the pronunciation pattern of traditional Bangla. Formal verb, pronoun and preposition have been contracted in the present form of Bangla language. For example: Koritechi>Korchi Tahader>Tader etc. (This is also an example of Dejuce Bangla)
At present, the practice of translation of a word from one language to another one has become outmoded; for instance, the equivalent term of Chemistry had been Rasayon in Bangla. In the present day world, new technology-related words have been acceptable more than anything else. As a result, no language and its rules and regulations can be confined to the four-walls. Therefore, this write-up tries to look at the present identity and features of Bangla language, when the ancient literary symbol of Bangla literature Charyapada was written, most of the Tatshama words denoted from Sanskrit language were found in it.
After 300 years the change that took place is the social & political history of Bangla, influenced the Bangla language too. At this period (mainly in 13th century) Bangladesh was under Turkish-Mogul power. For that reason influence and dominance of Sanskrit words is Bangla language was reduced & the appearance of Arabic & Persian words were noticed. During the 500-year reign of Mogul-Turkish power, in the Mid Bangla language the usage of Persian-Arabic words were noted 10-20%. On the other hand the percentage of words deriving from Sanskrit language was reduced. Although in the literary symbol of old period Shrikrisnakirtana , 6 Arabic & Persian words were traced, but in the Bangla literature starting from 16th century, the use of the Arabic and Persian words was increased. The evolution of the Bangla language in the middle stage is regarded as the second stage. Because of the reign of ruler, not only the vocabulary was enriched; there was also influence on the grammar. Persian suffixes & participle started to get used in Bangla language.
The third stage of the evolution of Bangla language was noted from the 18th century. The East Indian Company came for trading and business purpose in India and within a short period of time, they established themselves as the rulers from being just merchants. As the foundation of British power in Bengal was getting stronger, the use of English words, phrase and corrupted English vocabulary entered into Bangla language. Moreover, from the beginning of the 19th century, in the textbooks taught in the Fort William College, the influence of English sentences was noticed.
Before 19th century, only poetry was written in Bangla language. Besides letters, deeds and documents were present in prose form, but on a limited scale. If we notice the examples of Bangla language of Old and middle stage, we will see the prominent use if Prakrata language than the Sanskrit.
Here we have tried to show the evolution of Bangla language and its current position by presenting the percentage of various vocabulary used in different stages of Bangla language with the help of statistical data’s from the Bangla phrase and lexicon of 19th and 20th century.
The statistical report of the average use of words applied in the various volumes of Ishwarchandra Vidiyasagar (1820-1891) since the time of publication from 1847 to 1892 is shown in the following (See Navendu Sen; 1990: 85).

Tatshama Tadbhaba Native and Foreign words

53.33% 40.66% 6.01%

Suniti Kumar from the 1916 publication of the Bangla language dictionary compiled by Ganendromohon, shows the percentage of added words in the following order ( ODBL: 218)

Tatshama Tadbhaba and Native Foreign words

44.00% 51.45% 4.55%

Dr. Muhammad Enamul Haq in 1952 has shown in the following the percentage of vocabulary used in the writing of Rabindranath, Sharat Chandra, and Jasim Uddin.

Tatshama Half-Tadshama Tadbhaba Native Foreign

25% 5% 60% 2% 8%

Letters, deeds, documents were also created through language like creative literatures. For that if the language underwent changes as process of the language evolution, the change was also reflected on the languages. In present Bangla language the percentage of English word is more than ten and day by day it’s increasing.
The language does not change itself. Men change the language themselves. But the change does not happen all at a time or overnight. The smaller units of language get transformed for various incidents through the passage of time. And this transformation cannot be recognized and realised only by the language users of one generation. “Languages are spoken by people for purpose of communication. Consequently, speakers change languages, although this is not to say that they are necessarily conscious of doing so, or that they intend to make changes. Indeed, the history of any language, from a sociolinguistic point of view, is the story of an unbroken chain of generation speakers, all able to communicate with their parents and children while perhaps noticing minor differences inter-generational usage, and all believing they speak the same language” (April, Mcmahon; 1995; 8). Similar comments are applicable to Bangla language as well as Bengali speakers.
Besides letters, newspapers keep us informed about the day-to-day developments of the world. The languages used in the newspapers are very close to the colloquial language. It is relevant to mention that the readers of the newspapers range from educated to less educated persons. Newspapers and magazines that deem to be the mirror of society reflect the day-to-day life and harsh reality. In order to get a clear picture about the present form of daily news, more than a thousand years have passed since the creation of Bangla language. After going through a lot of changes, this language has made its own mark in the 21st century. In addition, because of enormous struggle and sacrifice in 1952, this language has obtained the status of International Mother Language Day on February 21, which is one of the memorable days for those who speak in Bangla. But at the same time it is also true that the characteristics (linguistic) of the contemporary Bangla language change a lot. If we love our Bangla language we should respect and need to develop the consciousness regarding use of mother tongue.

The writer is Professor, Dept. of Linguistics, University of Dhaka.

Comments { 0 }

বাংলা সাহিত্যের অনুরাগী এক জাপানি

বাংলা সাহিত্যের অনুরাগী এক জাপানি

প্রবীর বিকাশ সরকার | আপডেট: ২০:৩৪, নভেম্বর ১৩, ২০১৪

নিওয়া কিয়োকোপৃথিবীতে অঞ্চলভেদে মানবজাতির ভাষা বিবিধ। এই ভাষার কারণে গোত্রে-গোত্রে, গোষ্ঠীতে-গোষ্ঠীতে সংস্কৃতির মিল-অমিল বিদ্যমান। কোন ভাষা সহজ, কোন ভাষা কঠিন, তা নির্ভর করে মানুষের আগ্রহ, মেধা ও পরিকর্ষতার ওপর। ভিন্ন ভাষা আয়ত্ত করার পরও কথন, লেখন ও অনুবাদের ক্ষেত্রে নানা অসংগতি থাকেই। যতই ভাষাগত, উচ্চারণগত, ব্যাকরণগত মিল বা আত্মীয়তা থাকুক না কেন, স্বীকার করতে হবে যে প্রতিটি ভাষাই স্বতন্ত্র। ভাষাগত কারণে সংস্কৃতি ও সাহিত্য স্বতন্ত্র, দৃষ্টিভঙ্গি ভিন্ন এবং চিন্তা বৈচিত্র্যময়। বস্তুত এই বৈচিত্র্যই বিদেশি বা বিপরীত ভাষা ও সংস্কৃতির মানুষকে আকৃষ্ট করে এসেছে যুগে যুগে।
আধুনিককালে জাপানি ও বাংলা ভাষাভাষী এই দুই জাতির ক্ষেত্রেও তা–ই ঘটেছে। বিগত শতবর্ষ ধরে জাপানি ও বাঙালির মধ্যে ব্যাপক আদান–প্রদান ঘটেছে বললে বেশি বলা হয় না। কারণ সে পরিমাণ ইতিহাস ও দলিলপত্রই এর অকাট্য প্রমাণ। যার ভিত্তি স্থাপিত হয়েছিল ১৯০২ সালে অবিভক্ত বাংলার রাজধানী কলকাতায় জাপানি প​ণ্ডিত ও শিল্পাচার্য ওকাকুরা তেনশিন (১৮৬৩-১৯১৩) এবং কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের (১৮৬১-১৯৪১) ঐতিহাসিক সাক্ষাতের মধ্য দিয়ে। বাংলাদেশ দূতাবাসে বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম সম্পর্কে এক আলোচনা সভায় নিওয়া কিয়োকাঐতিহাসিক বলা এই কারণে যে, এই সম্পর্ক পরবর্তীতে জাপান ও ভারত তথা বাংলাদেশের মধ্যে শিক্ষা, সাংস্কৃতিক, ধর্মীয় ও রাজনৈতিক পটপরিবর্তনের দিকে ধাবিত হয়েছে। সম্ভবত এশিয়া মহাদেশে একমাত্র কোরিয়া ও চীনকে বাদ দিয়ে আর কোনো দেশ বা জাতির মধ্যে এত গভীর দ্বিপক্ষীয় আধ্যাত্মিক সম্পর্কের কথা জানা যায় না। ওকাকুরা-রবীন্দ্র সম্পর্ককে কেন্দ্র করে যে বিশাল ইতিহাস ছড়িয়ে ছটিয়ে আছে বিচ্ছিন্নভাবে, আজও তা লিপিবদ্ধ হয়নি সঠিকভাবে। যদি হতো, তাহলে জাপানি ও বাঙালি জাতির মধ্যে কর্ম, চিন্তা ও যৌথ উন্নয়নমূলক উদ্যোগের চূড়ান্ত রূপ নিত অনেক আগেই। মূলত অর্থনৈতিক বিভাজনের কারণে এই শতবর্ষ সম্পর্কটি অজানাই থেকে গেছে এবং বৃহৎ কোনো কাজেই লাগেনি। পাশাপাশি মানসিক বা আধ্যাত্মিক চিন্তা ধারণ করে থাকে মননশীল সাহিত্য। তার পাঠ ও অনুবাদ দুই দেশেই সমান্তরালভাবে এগিয়ে যায়নি। বাংলা সাহিত্য বিশেষ করে রবীন্দ্র সাহিত্য জাপানে যেভাবে পঠিত, অনূদিত ও গবেষণা করা হয়েছে, তা এক কথায় বিস্ময়কর। সে তুলনায় অন্যান্য বড়মাপের সাহিত্যিকদের রচনা নিয়ে যা কাজ হয়েছে বা হচ্ছে, তা নিতান্তই হাতেগোনা। যেমনটি জাপানি সাহিত্যের ক্ষেত্রে বাংলাভাষায় হয়েছে।
রবীন্দ্র বলয়ের বাইরে যেসব বাঙালি কবি-সাহিত্যিকের রচনা জাপানি ভাষায় অনূদিত হয়েছে আজ পর্যন্ত সেটা এক বিশাল প্রাপ্তি বাংলা ভাষাভাষীদের জন্য। এই দুরূহ কাজগুলোর মূল্যায়ন যথার্থভাবে আজও হয়নি। বাংলাভাষা ও সাহিত্যের এমন সমাদর একমাত্র জাপান ছাড়া আর কোনো দেশে হয়েছে বা হচ্ছে, নজরে পড়ে না। তথাপি যে দেশে বাংলা ভাষা নিয়ে কাজ করার অর্থনৈতিক ভিত্তি স্থাপিত হয়নি আদৌ, সে দেশে যাঁরা বাংলাভাষা ও সাহিত্য নিয়ে কাজ করছেন, তা মোটেই পেশাগত নয়, নিতান্তই প্রবল অনুরাগ বা প্যাশন থেকে। তাঁদের মধ্যে অন্যতম হলেন অধ্যাপিকা নিওয়া কিয়োকো (১৯৫৭-)।
অধ্যাপক উসুদা মাসাইউকি ও নিওয়া কিয়োকোর সঙ্গে লেখকদ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর আবার জাপানে রবীন্দ্রচর্চার সূত্রপাত ঘটে। ১৯৬১ সালে জাপানে ঘটা করে রবীন্দ্র জন্মশতবর্ষ উদযাপিত হয়। নতুন আলোয় রবীন্দ্রনাথ জাপানে উদ্ভাসিত হন। রবীন্দ্র–আকর্ষণে বেশ কিছু তরুণ-তরুণী বাংলা ভাষা শিক্ষা গ্রহণে আগ্রহী হয়ে ওঠেন। স্বনামধন্য বাংলা ভাষার শিক্ষক ও গবেষক অধ্যাপক ড.ৎসুয়োশি নারা, পশ্চিমবঙ্গের বাঙালি কল্যাণ দাশগুপ্ত, বাংলাদেশের সাংবাদিক ইসকান্দার আহমেদ চৌধুরী প্রমুখের প্রচেষ্টায় বাংলাভাষা শেখানোর উদ্যোগ নেয়া হয়। সেই সময় ‘বাংলা সাহিত্য পাঠ সংস্থা’ নামের একটি চক্রের কথা জানা যায়। এতে বাংলাদেশ বিষয়ে স্বনামধন্য গবেষক, বাংলা সাহিত্যের অনুরাগী ও বিশিষ্ট রবীন্দ্রভক্ত অধ্যাপক উসুদা মাসাইউকি সদস্য ছিলেন। তাঁর ভাষ্য থেকে জানা যায়, সত্তর দশকের শেষদিকে নিওয়া কিয়োকো এই সংস্থার সঙ্গে জড়িত হন। তিনি মূলত টোকিও বিদেশি ভাষা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে হিন্দি ভাষায় এমএ ডিগ্রি অর্জন করেন। কিন্তু রবীন্দ্রসাহিত্যের প্রভাবে বাংলা ভাষার প্রতি আগ্রহী হন। এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘(আমি) সাহিত্যের ছাত্রকালীন অবস্থায় রবীন্দ্রসাহিত্যের সঙ্গে আমার পরিচয়। আপনি হয়তো জানেন যে জাপানে রবীন্দ্রসাহিত্য বেশ জনপ্রিয়। তা রবীন্দ্র সাহিত্য পড়তে যেয়েই আমি বাংলা সাহিত্যকে আরও বেশি করে কাছ থেকে জানার সুযোগ পাই। যেহেতু বাংলা সাহিত্যের ইংরেজি অনুবাদ সে রকম খুব একটা হয়নি, তাই ভাবলাম বাংলাটা যদি নিজে শিখে নিতে পারি তাহলে এ ভাষার সাহিত্যের সঙ্গে আরও বেশি পরিচিত হতে পারব। এভাবেই বাংলার প্রতি আগ্রহটা ধীরে ধীরে বেড়ে যায়। পরবর্তী সময় ভারতের যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলাভাষা ও সাহিত্যের ওপর পিএইচডি করি (১৯৮৮) এবং বাংলা সাহিত্যকে জাপানি ভাষায় অনুবাদ করে জাপানিদের কাছে পরিচিত করার চেষ্টা করছি।’
নিওয়া কিয়োকো অনূদিত বাংলাদেশের নির্বাচিত কবিতাঅধ্যাপিকা নিওয়া কিয়োকো আরও বলেন, ‘আন্তর্জাতিক সাহিত্যমানের দিক থেকে বাংলা সাহিত্য নিঃসন্দেহে আধুনিক ও উন্নত। তারাশঙ্কর, বিভূতি, মানিক, সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ, নজরুল—এঁদের উপন্যাস পড়ে আমার এই মনে হয়েছে যে উপন্যাসগুলোর ইংরেজি অনুবাদ হওয়া খুবই জরুরি। শুধু অনুবাদ হয়নি বলেই একমাত্র রবীন্দ্রনাথ ছাড়া এইসব সময়োত্তীর্ণ বিখ্যাত উপন্যাসগুলোর সঙ্গে বিভিন্ন ভাষাভাষী মানুষের তেমন কোনো আত্মিক যোগাযোগ হয়ে উঠতে পারেনি। তবে এ কথা নিশ্চিত করেই বলা যায়, বাংলা সাহিত্যের মান বিশ্বের অন্যান্য ভাষায় রচিত বিখ্যাত সাহিত্যের চেয়ে কোনো অংশেই কম নয়।’
টোকিও বিদেশি ভাষা বিশ্ববিদ্যালয়, তোওকাই বিশ্ববিদ্যালয় ও আজিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে খণ্ডকালীন শিক্ষকতার পর ২০১২ সাল থেকে টোকিও বিদেশি ভাষা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষ অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত নিওয়া কিয়োকো কলকাতা ও ঢাকার শিক্ষা ও সাহিত্যাঙ্গনে বেশ পরিচিত নাম। একাধিকবার তিনি এই দুই শহরে যাতায়াত করেছেন। খুব কাছে থেকে তিনি বাঙালিকে দেখেছেন বলে তাঁর মধ্যে বাংলার ইতিহাস, সমাজ, ধর্ম, সংস্কৃতি ও রাজনীতি সম্পর্কে সম্যক ধারণা জন্মলাভ করেছে। আসলে একটি দেশের বা জাতির সাহিত্যকে গভীরভাবে বুঝতে হলে সে দেশের ইতিহাস ও মানুষকে না জানলে নয়। সেই বিবেচনায় তাঁর কর্মসাধনা সার্থক বলে অভিমত ব্যক্ত করা যায়। তাঁর প্রচেষ্টার কারণেই আধুনিক বাংলা ভাষা ও সাহিত্য জাপানে বিস্তৃতি লাভ করছে। জাপানি পাঠকদের কাছ থেকে অনেক সাড়া পেয়েছেন বলে তিনি জানান। তিনি বলেন, সত্যি কথা বলতে জাপান ও বাংলাদেশের আর্থসামাজিক, ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক চেহারায় কিন্তু খুব একটা অমিল নেই। দুটো দেশই ধর্মীয় মূল্যবোধের বেড়ায় বন্দী। দুটো দেশের মানুষের চিন্তা, মূল্যবোধ এবং মনন প্রায় একই রকম। সেদিক থেকে জাপানিদের বাংলা সাহিত্যের বিষয় এবং ভাবনায় নিজেদের আত্মস্থ করে নিতে খুব একটা হোঁচট খেতে হয়নি।
রবীন্দ্রনাথকে নিয়ে লিখিত অধ্যাপিকা নিওয়া কিয়োকোর নতুন গ্রন্থএই পর্যন্ত তাঁর পরিশ্রমসাধ্য প্রতিটি কাজই গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রতিভার স্বাক্ষর বহন করে। ১৯৭৬ সালে বাংলা সাহিত্য পাঠ সংস্থা থেকে একটি সাহিত্যপত্রিকা কল্যাণী প্রকাশিত হয় জাপানি ভাষায়। এতে সেই সময়কার বাংলা ভাষার শিক্ষার্থীরা লিখতেন। মনে হয় কাগজটি বার্ষিক ছিল। এর ১৬টি সংখ্যার খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে ইন্টারনেটে। কাগজটির সম্পাদক অধ্যাপক উসুদা মাসাইউকির সঙ্গে আলাপকালে জানা গেল এখনো অনিয়মিতভাবে প্রকাশিত হচ্ছে। এই কল্যাণীতে নিয়মিত লিখতেন নিওয়া কিয়োকো। কল্যাণীর ১৩ নম্বর সংখ্যায় নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী, ১৪ নম্বরে শক্তি চট্টোপাধ্যায়, ১৫ নম্বরে জয় গোস্বামীর কবিতার অনুবাদ ও ১৬ নম্বর সংখ্যায় বীরভূম এবং তারাশঙ্করের কবি উপন্যাস নিয়ে একটা প্রবন্ধ লেখার খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে। বাংলা কবিতা মনে হয় তাঁকে প্রথম থেকেই প্রভাবিত করেছিল হয়তো রবীন্দ্রনাথের কল্যাণেই। তারপর ঝুঁকেছেন আধুনিক কবিতার দিকে। বীরভূমে জন্ম সাহিত্যিক তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের চারণ কবিও তাকে বিশেষভাবে আকৃষ্ট করেছিল। রবীন্দ্রনাথের পর কি তিনি তারাশঙ্কর দ্বারা আন্দোলিত হয়েছিলেন? তারই প্রমাণ যেন তারাশঙ্করের বিখ্যাত উপন্যাস জলসাঘর যা ১৯৯৩ সালে তিনি অনুবাদ করেন। নিঃসন্দেহে একটি দুরূহ কাজ।
বাংলাদেশ মানেই চিরবিদ্রোহের দেশ। বাদ–প্রতিবাদ, বিদ্রোহ বাঙালি কবিদের অস্থিমজ্জার অবিচ্ছেদ্য অংশ। কাজী নজরুল ইসলাম বিদ্রোহী কবিকুলের শ্রেষ্ঠ কবি। নজরুলের কবিতা বিদেশিদেরকে নাড়া দিলেও তাঁকে নিয়ে গবেষণা বা তাঁর গ্রন্থাদির অনুবাদ হয়নি বললেই চলে। সেই দৃষ্টিতে দেখলে জাপানি সমাজে নিওয়া কিয়োকোই মনে হয় প্রথম নজরুলকে বিস্তৃতভাবে তুলে ধরেছেন জাপানে নজরুল কবিতা সংকলন গ্রন্থে। নজরুলের কবিতার জাপানি অনুবাদগ্রন্থটি প্রকাশিত হয় ১৯৯৯ সালে। ২০০৩ সালে তিনি অধ্যাপক উসুদা মাসাইউকির সঙ্গে যৌথভাবে অনুবাদ করেন বাংলা সাহিত্যের খ্যাতিমান ঔপন্যাসিক মহাশ্বেতা দেবীর দ্রৌপদী উপন্যাসটি। ২০০৪ সালে অনুবাদ করেন বাংলা সাহিত্যের আরেক কালজয়ী উপন্যাস সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহর লাল সালু। এছাড়া বাংলাভাষা শেখার জন্য দুটি অনুশীলন গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে—একটি অধ্যাপক মাচিদা কাজুহিকোর সঙ্গে যৌথভাবে সিডি এক্সপ্রেস বেনগারু গো (২০০৪) এবং এককভাবে রচিত নিউ এক্সপ্রেস বেনগারু গো (২০১১) নামে।
এই গ্রন্থগুলোর পাশাপাশি তাঁর শ্রমসাধ্য অসামান্য কাজ হচ্ছে ২০০৭ সালে প্রকাশিত বাংলাদেশ তথা বাংলা সাহিত্যের চারজন প্রধান কবির জাপানি অনুবাদের সংকলন বাংগুরাদেশু শি ছেনশুউ বা বাংলাদেশের নির্বাচিত কবিতা নামে। সোয়া ৩০০ পৃষ্ঠার এই গ্রন্থটিতে যে চারজন কবির কবিতা রয়েছে তাঁরা হলেন নির্মলেন্দু গুণ, আল মাহমুদ, শহীদ কাদরী ও শামসুর রাহমান। নির্মলেন্দু গুণের ২৭টি, আল মাহমুদের ২৫টি, শহীদ কাদরীর ২৭টি ও শামসুর রাহমানের ২৯টি ছোট-বড় কবিতা তিনি নির্বাচিত করেছেন।
কবি নির্মলেন্দু গুণের কবিতাগুলো যথাক্রমে হুলিয়া, ভালোবাসার টাকা, মানুষ, পূর্ণিমার মধ্যে মৃত্যু, প্রথম পৃথিবী, যেহেতু যাইনি যুদ্ধে, আমার সংসার, যদি পেছন দিকে তাকাও, তোমার না-থাকাগুলো, কবির বাগান, যাত্রাভঙ্গ, কয়েকজন কৃষকের সঙ্গে আলাপ, স্বপ্ন-নবভৌগোলিক শিক্ষা, জীবনের প্রথম বরফ, আমি বিষ খাচ্ছি অনন্ত, আরও এক ঋতু আছে, ছিন্নপত্র ১৯৭৬, নিরঞ্জনের পৃথিবী, কবর ও কারাগার, হঠাৎ দেখা, এখনো কি সমুদ্র সেই আগের মতো আছে, কাশবন ও আমার মা, আকাশ সিরিজ ১-২-৩, বন্যা এবং যখন আমি বুকের পাঁজর খুলে দাঁড়াই।
জাপানিদের জন্য বাংলাভাষা শেখার পাঠগ্রন্থ এক্সপ্রেস বেনগারু গোকবি আল মাহমুদের কবিতাগুলো যথাক্রমে অরণ্যের ক্লান্তির দিন, বৃষ্টির অভাবে, এমন তৃপ্তি, ফেরার সঙ্গী, অবুঝের সমীকরণ, নৌকায়, জল দেখে ভয় লাগে, আমার সমস্ত গন্তব্য, সবুজ পাতার, প্রত্যাবর্তনের লজ্জা, অন্তর্ভেদী অবলোকন, সোনালি কাবিন ১, চোখ, আমার অনুপস্থিতি, বুদ্ধদেব বসুর সঙ্গে সাক্ষাৎকার, ফররুখের কবলে কালো শেয়াল, চান্দের দিকে, কিছু মনে নেই, শ্রাবণ, সত্যরক্ষার তাগাদা, অনন্তকাল, প্রেয়সী তোমাকে, লেখার সময়, ডানাওলা মানুষ এবং আমি শুধু।
কবি শহীদ কাদরীর কবিতা যথাক্রমে, বৃষ্টি-বৃষ্টি, মুত্যুর পরে, স্মৃতি: কৈশোরিক, জানালা থেকে, প্রিয়তোমাষু, অলীক, নগ্ন, ইন্দ্রজাল, বাংলা কবিতার ধারা, নিষিদ্ধ জার্নাল থেকে, পাখিরা সিগন্যাল দেয়, ব্ল্যাক আউটের পূর্ণিমায়, বন্ধুদের চোখ, এইসব অক্ষর, গোধূলি, টাকাগুলো কবে পাবো?, জতুগৃহ, তোমাকে অভিবাদন-প্রিয়তমা, আজ সারাদিন, কেন যেতে চাই, শীতের বাতাস, উত্থান, আর কিছু নেই, এও সঙ্গীত, একটি ব্যক্তিগত বিপর্যয়ের জার্নাল, একটি উত্থান-পতনের গল্প এবং দাঁড়াও আমি আসছি।
কবি শামসুর রাহমানের কবিতা যথাক্রমে দুঃখ, যে আমার সহচর, কখনো আমার মাকে, আসাদের শার্ট, মা, দুঃস্বপ্নে একদিন, স্বাধীনতা তুমি, কাক, একটি কবিতার জন্য, ছেলেবেলা থেকেই, প্রশ্নোত্তর, বাংলাদেশ স্বপ্ন দেখে, টানেলে একাকী, শিরোনাম মনে পড়ে না, সিঁড়ির পর সিঁড়ি, মধ্যরাতের পোস্টম্যান, ইচ্ছে হয় একটু দাঁড়াই, আমি এক ভদ্রলোক, একটি ফটোগ্রাফ, মগজে গোধূলি আর হাড়ে রঙিন কুয়াশা, কালো মেয়ের জন্য পঙক্তিমালা, ওরা চলে যাবার পরে, ল্যাম্পপোস্ট, পরিবর্তন, টেবিলে আপেলগুলো হেসে ওঠে, ঝরাপাতা, শ্রোতা, হরিণের হাড় এবং প্রেমের পদাবলী।
গ্রন্থটিতে প্রথমেই অধ্যাপক উসুদা মাসাইউকি অনুবাদক নিওয়া কিয়োকোর একটি চমৎকার পরিচিতি দিয়েছেন। গ্রন্থের শেষদিকে রয়েছে অনুবাদকের দীর্ঘ কিন্তু অসাধারণ একটি ব্যাখ্যা: প্রথমেই বলেছেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এখনো কত প্রভাবশালী বাঙালি জীবনে। চারজন কবি ও তাঁদের কবিতা সম্পর্কে অভিমত ব্যক্ত করতে গিয়ে পূর্ব পাকিস্তান, ভাষা আন্দোলন, রাজনৈতিক পরিস্থিতি, স্বাধীনতা ইত্যাদি প্রসঙ্গ উল্লেখ করেছেন। এসবের সঙ্গে কবিদের সম্পৃক্ততা, চিন্তাভাবনা, সৃষ্টিশীলতা, জীবনযাপন ইত্যাদি প্রসঙ্গও উপস্থাপিত হয়েছে। এ–ও তিনি উল্লেখ করেছেন যে, বাংলা কবিতায় ‘ইনরিৎসু’ তথা ‘ছন্দ’ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বর্তমানে মুক্তগদ্য এবং নানা পরীক্ষা–নিরীক্ষার যুগেও ছন্দোবদ্ধ কবিতা বা পদ্য অথবা শব্দের তাল মিলিয়ে কবিতা রচনার প্রবণতা বিদ্যমান। ফলে বাংলা কবিতা যে জাপানি ভাষায় অনুবাদ করা কত কঠিন, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। কারণ, সম্প্রতি প্রয়াত জাপানি রবীন্দ্রগবেষক অধ্যাপক কাজুও আজুমা একবার বলেছিলেন, জাপানি ভাষায় ছন্দ নেই। কবিতার ধ্বনি ও অর্থগত সৌন্দর্যকে পরিস্ফুট করতে গিয়ে সাধারণ জাপানি ভাষার সঙ্গে সংগত নয় শব্দ, বিবরণ ও আঙ্গিক-রীতিকে প্রাধান্য দিতে হয় বলে কিয়োকো লিখেছেন।
সর্বশেষে তিনি জানান, চারজন কবির সঙ্গেই তাঁর একাধিকবার সাক্ষাৎ হয়েছে এবং বিভিন্ন প্রশ্নের মাধ্যমে জিজ্ঞাসা, কৌতূহল মেটানোর চেষ্টা করেছেন। এর মাধ্যমে তিনি কবিদের চিন্তাচেতনা, দর্শন এবং কবিমানসকে বুঝতে প্রয়াস পেয়েছেন; এটা একটা ইতিবাচক দিক।
অধ্যাপক নিওয়া কিয়োকোর আপাত শেষ গ্রন্থ রবীন্দ্রনাথকে নিয়ে এটা ২০১১ সালে প্রকাশিত কবিগুরুর সার্ধশত জন্মবর্ষে প্রকাশিত তাগো-রু বা টেগোর নামে। রবীন্দ্রনাথের জীবন ও চিন্তাই এই গ্রন্থে আলোচিত হয়েছে। নিঃসন্দেহে একটি অসামান্য তথ্যবহুল গ্রন্থ যা নতুন প্রজন্মের জাপানিদেরকে রবীন্দ্রনাথ সম্পর্কে অবহিত করবে বলে বিশ্বাস করি। তবে একটা কথা বলতেই হয়, যেহেতু জাপান থেকে গ্রন্থটি লিখিত ও প্রকাশিত, জাপান-রবীন্দ্র সম্পর্কের শতবর্ষ ইতিহাসের গুরুত্বপূর্ণ দিকগুলো এতে সংক্ষিপ্তাকারে তুলে ধরা যেত বলে মনে হয়। তাহলে গ্রন্থটি সম্পূর্ণ হতো। কারণ রবীন্দ্রজীবনে জাপানের প্রভাব এতই গভীর ছিল যে, পাঁচবার তিনি জাপান ভ্রমণ করেছিলেন।
সংসার ও শিক্ষকতা জীবনের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে গবেষক নিওয়া কিয়োকো যেভাবে বাংলা সাহিত্য নিয়ে কাজ করছেন, তার জন্য তাঁকে মূল্যায়ন করার সময় এসেছে বলে মনে হয়। নিরন্তর তিনি কাজ করে যাচ্ছেন। পশ্চিমবঙ্গের চারজন কবির কবিতা হয়তো অচিরেই জাপানি ভাষায় অনুবাদ করে আরেকটি মাইলফলক তিনি স্থাপন করবেন। সেই চারজন কবির মধ্যে তিনজনের নাম ইতিমধ্যে তিনি নির্বাচন করেছেন বলে জানা যায়। তাঁরা হলেন সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়, শক্তি চট্টোপাধ্যায় ও জয় গোস্বামী। তাঁর এই অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে, এটা আমাদের পরম প্রত্যাশা।
প্রবীর বিকাশ সরকার
জাপান প্রবাসী লেখক ও গবেষক

Comments { 0 }

Interview with the Learn Bangla Software Developer

Channel S, a popular TV channel in the UK and Europe telecast an interview with the Easy Learn Bangla Developer. Please see the video:

Dr Aminul Chowdhury

Dr Aminul Chowdhury

 

Comments { 0 }

New Software to Learn Bangla – Press Release

 

Easy Learn Bangla Press Release

New Software to Learn Bangla
Multimedia software developed for foreigners and Bangladeshi children living abroad.

Bangla Soft has released a Bangla learning software focusing on Bangladeshi origin children living around the globe, particularly in Britain, Europe, USA and Canada. The software is designed to learn Bangla with fun using a PC. It starts from the very beginning and takes you to the advanced levels. It teaches Bangla pronunciation via English phonetics. Audio files are associated with graphics or Bangla characters, words or texts to listen to Bangla pronunciation.

Today over five million Bangladeshis are residing in many parts of the globe. As a non resident Bangladeshi, we feel that we should pass our identity and heritage on to our next generation. The next generation should know about their roots, cultural and language background which will make them proud and help to become a good citizen in this multicultural society. The goal of this software is to introduce the Bangla language and cultural roots to the next generation Bangladeshis and to introduce Bangla as a second language of communication for them.

Features of the program include: Introduction to the Bangla language and the International Mother Language day, Bangla alphabets and numbers (with animated writing sequences), scientific pronunciation with voices (examples with graphics), practice lessons, alphabet lessons; simplified Bangla Grammar; useful daily conversations with voices and graphics such as greetings, getting around, food and restaurants, making hotel reservations, shopping, Bangla proverbs and many other useful conversations. It also includes vocabulary with voices and practice drills; Talking Dictionary: English to Bangla and Bangla to English word translations with voices. An attractive voice instruction in English will guide you through the different sections of the software.

About the software developer: Dr Chowdhury is a Chartered Water and Environmental Manager (MCIWEM), Civil Engineer by profession and has been working in the River and Coastal Engineering field for over 20 years. At the present time, he is working for Royal HaskoningDHV as a Senior Engineer.

”A fascinating software! I suggest you try it.
Surely you will pay with pleasure £10.00 for a license!
I know it is not a business for Dr. Eng. Aminul Chowdhury, but a cultural proposal to get in touch with Bangla! That’s the reason for the very low cost of Easy Learn Bangla.” Dr Dino Kaka, Milano, Italy.

If you would like more information about the software, or to schedule an interview with Dr Aminul Chowdhury, please call Aminul at 07951 978990 or e-mail at aminulkc2003@yahoo.com

Comments { 0 }